প্রাথমিকে সহকারী প্রধান শিক্ষক পদে ৬৬ হাজার নিয়োগ

প্রাথমিকে সহকারী প্রধান শিক্ষক পদে ৬৬ হাজার নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি 2020 প্রকাশিত হবে।দেশের প্রত্যেক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে একজন করে সহকারী প্রধান শিক্ষক নিয়োগ দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। ইতোমধ্যে এ সংক্রান্ত একটি প্রস্তাব জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় অনুমোদন করেছে। খুব দ্রুত সময়ের মধ্যে অন্যান্য প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হবে। তারপর দেশের ৬৬ হাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তা বাস্তবায়ন হবে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এমন তথ্য জানা গেছে।

সূত্রমতে, বিভিন্ন ধরনের প্রশাসনিক ও সরকারি কাজের কারণে সরকারী প্রাইমারি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকরা ক্লাস নিতে পারেন না। এমনকি এই সুযোগে প্রায় সময় প্রধান শিক্ষকরা স্কুলে অনুপস্থিত থাকেন। শুধু তাই নয়, বেশির ভাগ শিক্ষকই এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে ‘ফাঁকিবাজি’ করে থাকেন। তবে বিদ্যমান এমন পরিস্থিতি নিরসনের জন্য সরকার সহকারী প্রধান শিক্ষক নিয়োগ দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এ বিষয়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিব আকরাম-আল-হোসেন বলেন, ‘সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী প্রধান শিক্ষক নিয়োগসংক্রান্ত প্রস্তাব জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় অনুমোদন করেছে। এখন দ্রুততার সঙ্গে পদ সৃষ্টিসংক্রান্ত অন্যান্য প্রক্রিয়া শেষ করার কাজ চলছে। এ পদ অনুমোদন পেলে সহকারী শিক্ষকদের মধ্য থেকে পদোন্নতির মাধ্যমে পূরণ করা হবে।’

বিকাশ একাউন্টে ফ্রি ১৫০ টাকা বোনাস নিয়ে নিন !!নতুন বিকাশ অ্যাপ থেকে নিজের একাউন্ট খুলুন মিনিটেই, শুধুমাত্র জাতীয় পরিচয়পত্র দিয়ে। কোথাও যেতে হবে না! আর অ্যাপ থেকে একাউন্ট খুলে প্রথম লগ ইনে পাবেন ১০০ টাকা ইনস্ট্যান্ট বোনাস! - প্রথম বার ২৫ টাকা রিচার্জে ৫০ টাকা ইনস্ট্যান্ট বোনাস Bkash App Download Link

প্রাথমিকে সহকারী প্রধান শিক্ষক পদে ৬৬ হাজার নিয়োগ

তিনি আরও বলেন, ‘দশম ও একাদশ গ্রেডের জন্য শিক্ষকরা আন্দোলন করছেন। এটি পূরণ করতে বিদ্যমান বিধিমালার সংশোধন দরকার। সেটি সময়সাপেক্ষ। তাই এখন আপাতত সমাধানের একটি পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে। সেটি হচ্ছে, সবাইকে একই গ্রেডে নিয়ে আসা। পরে নিয়োগ বিধিমালা সংশোধন করে গ্রেড উন্নীত করা হবে শিক্ষক-এটিইওদের। বিধিমালা তৈরি হয়ে গেলে তাদের পদসোপান করা হবে। তখন গ্রেডের কোনো সমস্যা থাকবে না। বরং সহকারী শিক্ষকরাও যোগ্যতা সাপেক্ষে পরিচালক পর্যন্ত হতে পারবেন। তাই তাদের এজন্য একটু সময় দিতে হবে।’

সহকারী প্রধান শিক্ষক পদ সৃষ্টি খুবই জরুরি বলে উল্লেখ করেছেন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সমিতির সভাপতি ও প্রাথমিক শিক্ষক ঐক্য পরিষদের প্রধান মুখপাত্র বদরুল আলম।

তিনি বলেন, ‘প্রধান শিক্ষকদের সরকারি নানা কাজে প্রায়ই বিদ্যালয়ের বাইরে থাকতে হয়। প্রধান শিক্ষক বিদ্যালয় ত্যাগ করলে অনেকেই দাফতরিক কাজ ছেড়ে গল্পগুজব করেন। শিক্ষার স্বার্থে এ পদ জরুরি। তবে শিক্ষকদের গ্রেড পরিবর্তন সংক্রান্ত দাবি বিবেচনায় রেখেই পদটি সৃষ্টি করতে হবে।
Info Source: বাংলাদেশ জার্নাল

Related Content