জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপবৃত্তি আবেদন /প্রদান সংক্রান্ত নোটিশ 2020

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপবৃত্তি প্রদান সংক্রান্ত নোটিশ/ ডিগ্রী উপবৃত্তি আবেদন /প্রদান সংক্রান্ত জরুরী নোটিশ 2020  এতদ্বারা ডিগ্রী (পাস) এবং সমমান (অর্থাৎ ফাজিল পাস) এর সকল শিক্ষার্থীদের অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে, আপনারা যারা 2016-2017, 2017-2018, 2018-2019 শিক্ষাবর্ষের উপবৃত্তির জন্য (নতুন ভাবে) মনোনিত হয়েছেন, তাদের সব কার্যক্রম প্রায় শেষ হয়েছে। Notice regarding grant of Degree Pass and Certificate Course scholarships to National University of Bangladesh

উপবৃত্তির টাকা কবে দিবে?

২০২০ সালের স্নাতক (পাস) ও সমমান পর্যায়ের দরিদ্র ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তি প্রদান

শিক্ষার সব খবর সবার আগে জানতে DailyResultBD এর ইউটিউব চ্যানেলের সাথেই থাকুন। আমদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন YouTube Channel নতুন বিকাশ অ্যাপ থেকে নিজের একাউন্ট খুলুন মিনিটেই, শুধুমাত্র জাতীয় পরিচয়পত্র দিয়ে। কোথাও যেতে হবে না! আর অ্যাপ থেকে একাউন্ট খুলে প্রথম লগ ইনে পাবেন ১০০ টাকা ইনস্ট্যান্ট বোনাস!সাথে আছে আরো অ্যাপ অফার: - প্রথম বার ২৫ টাকা রিচার্জে ৫০ টাকা ইনস্ট্যান্ট বোনাস .সর্বমোট ১৫০ টাকা বোনাস পাবেন একজন বিকাশ গ্রাহক। এছাড়া যারা একাউন্ট খুলেছেন তারাও বিকাশ এপ ডাউনলোড করে প্রথম প্রথম লগ ইনে পাবেন ১০০ টাকা ইনস্ট্যান্ট বোনাস! Bkash App Download Link

প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষা সহায়তা ট্রাস্ট কর্তৃক ২০১৬-১৭,
২০১৭-১৮ এবং ২০১৮-১৯ (৩য় বর্ষ, ২য় বর্ষ এবং ১ম বর্ষ) শিক্ষাবর্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় এবং ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনস্থ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে অধ্যয়নরত ২০২০ সালে স্নাতক (পাস) ও সমমান পর্যায়ে দরিদ্র ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তি প্রদান করা হবে।
উপবৃত্তি প্রাপ্তির জন্য শিক্ষার্থীকে http://estipend.pmeat.gov.bd লিংক-এ প্রবেশ করে অনলাইনে নিবন্ধন করতে হবে ।

নিবন্ধনের জন্য প্রয়ােজনীয় নির্দেশনা বর্ণিত ওয়েবসাইটে ব্যবহার নির্দেশিকায় পাওয়া যাবে । উক্তনসফটওয়্যারে তথ্য এন্ট্রির জন্য সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাদের আলাদাআলাদা User ID ও password শিমই প্রেরণ করা হবে। ব্যবহার নির্দেশিকার শর্তাবলি অনুসরণপূর্বক আগামী ১৬/০৮/২০২০ খ্রি: থেকে ১৫/০৯/২০২০ খ্রি: তারিখ পর্যন্ত সিস্টেম ব্যবহার করে অনলাইনে শিক্ষার্থীরা আবেদন
করতে পারবে। সামগ্ৰীক প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে আগামী ৩০/০৯/২০২০ তারিখের মধ্যে নির্বাচিত শিক্ষার্থীদের তালিকা সিস্টেম ব্যবহার করে অনলাইনে প্রেরণ করার জন্য অনুরোধ করা হলাে।

প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষা সহায়তা ট্রাস্ট এর অনুমোদন হলেই ২০১৫-২০১৬ শিক্ষাবর্ষের বাছাইকৃত শিক্ষার্থীরা সহ আগের ২০১৫-১৬ এবং ২০১৬-২০১৭, ২০১৭-২০১৮ শিক্ষাবর্ষে আপনারা সকলেই নিজ নিজ বিকাশ একাউন্টে যথাসময়ে উপবৃত্তির টাকা পেয়ে যাবেন।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ন্ত্রণাধীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহে নিয়মিত আধ্যয়নরত স্নাতক (পাস)এবং স্নাতক (সম্মান)পরীক্ষার ফলের ভিত্তিতে প্রকাশিত গেজেটে তালিকাভুক্ত মেধা ও সাধারণ বৃত্তিপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের ২০১৯-২০ অর্থবছরে বৃত্তির অর্থ প্রাপ্তির আবেদন সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি ।

 

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপবৃত্তি আবেদন / প্রদান সংক্রান্ত নোটিশ ২০২০

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপবৃত্তি আবেদন / প্রদান সংক্রান্ত নোটিশ ২০২০

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপবৃত্তি প্রদান সংক্রান্ত নোটিশ

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৯ সালের বৃত্তি প্রদানের জন্য ডিগ্রী (পাস)উপবৃত্তির নির্বাচিত শিক্ষার্থীদের আগামী ০৯/১০/২০১৯ তারিখের মধ্যে বিকাশ একাউন্ট খুলতে হবে।

বিঃদ্রঃ ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষের নতুনদের মধ্যে বাছাইকৃত অনেকের নাম্বারে আগে থেকেই বিকাশ একাউন্ট খোলা ছিল। তাদের নতুন করে বিকাশ একাউন্ট খুলতে হবেনা।
আপনারা মনোনীত প্রত্যেকেই টাকা পাবেন। তাই সবাই নিজেদের উপবৃত্তির জন্য মনোনীত নাম্বার টি সব সময় সচল রাখুন।

Read More যে সব কারণে ডিগ্রী পাস কোর্স শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তি দেওয়া হয়

কবে স্নাতক ও সমমান পর্যায়ের উপবৃত্তি দিবে?

স্নাতক ও সমমান পর্যায়ের ২০১৯ সালের শিক্ষার্থীরা পাচ্ছেন উপবৃত্তি ও টিউশন ফি প্রদান। বৃহস্পতিবার (১৪ মে) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে গণভবন থেকে মোবাইল ব্যাংকিং পরিষেবার মাধ্যমে সুবিধাভোগীদের হিসেবে সরাসরি নগদ অর্থ প্রেরণের এই কার্যক্রম উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় স্নাতক পাস উপবৃত্তির নিউজঃ 
২০১৬-২০১৭ অর্থ বছরে যারা উপবৃত্তি ফরম পাবে:-
স্নাতক পাস ১৩-১৪ সেশন: শেষ কিস্তি।
স্নাতক পাস ১৪-১৫ সেশন: ২য় কিস্তি।

অনার্স / পাস ১৫-১৬ সেশন: ১ম কিস্তি।
উপবৃত্তি প্রদানের তারিখ: অক্টোবর ২০১৯
যারা উপবৃত্তি পাবেঃ ৭৫% মেয়ে এবং ২৫% ছেলে।
উপবৃত্তির পরিমাণঃ ৪৯০০/-টাকা

সেপ্টেম্বর মাসে উপবৃত্তির জন্য বিকাশ একাউন্ট খোলা শুরু হয় যারা ২০১৫-২০১৬ সেশনের আছেন তারা সব সময় কলেজে যোগাযোগ রাখবেন। (যারা উপবৃত্তির জন্য মনোনিত হয়েছেন)।
অন্যান্য সেশনের একাউন্ট খুলে রাখুন। ২০১৬-২০১৭ সেশনের উপবৃত্তির জন্য প্রাথমিক আবেদন গত আগস্টে ২০১৮ তে শুরু হয়।

উপবৃত্তির উদ্দেশ্য:
ছাত্র/ছাত্রী ভর্তির হার বৃদ্ধি;
ছোট পরিবার গঠনে উৎসাহ প্রদান এবং প্রজনন হার নিয়ন্ত্রণ;
চাকুরির সুযোগ এবং উপার্জন ক্ষমতা বৃদ্ধি;
দারিদ্র্য বিমোচন এবং জেন্ডার সমতা অর্জন; এবং
সামাজিক ও সাংস্কৃতিক উন্নয়ন।

উপবৃত্তি পাওয়ার ক্ষেত্রে শিক্ষার্থী নির্বাচনের শর্তাবলী:
প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থী, এতিম, অস্বচ্ছল মুক্তিযোদ্ধাদের সন্তান, নদীভাঙ্গন কবলিত পরিবারের সন্তান এবং দুস্থ পরিবারের সন্তানগণ উপবৃত্তি প্রাপ্তির ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পাবে।
তৃতীয় লিঙ্গধারী সকল শিক্ষার্থী উপবৃত্তি প্রাপ্য হবে এবং এদের তালিকা পৃথক ভাবে প্রেরণ করতে হবে।
উপবৃত্তি প্রাপ্তির জন্য নির্বাচিত শিক্ষার্থীর অভিভাবকের বার্ষিক আয় মোট ১,০০,০০০/- (এক লক্ষ) টাকার কম হতে হবে।

অভিভাবক/পিতামাতার মোট জমির পরিমাণ সিটি কর্পোরেশন এলাকায় বসবাসকারী ০.০৫ শতাংশ, পৌরসভা এলাকায় ০.২০ শতাংশ এবং অন্যান্য এলাকায় ০.৭৫ শতাংশের কম থাকতে হবে।
সংশ্লিষ্ট এলাকার সিটি কর্পোরেশন/ পৌরসভার মেয়র/ কাউন্সিলর/ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান/ প্রথম শ্রেণির গেজেটেড কর্মকর্তা/ সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধান প্রদত্ত আয় ও জমির পরিমাণ সম্পর্কিত সনদপত্র যুক্ত করতে হবে।

National University Degree/Honours/Masters Scholarship/ Stipend Notice /NU Circular উপবৃত্তি প্রাপ্তির জন্য শিক্ষার্থীকে স্নাতক (পাস)/সমমান (ফাজিল) পর্যায়ের নিয়মিত শিক্ষার্থী হতে হবে। ২য় বর্ষ এবং ৩য় বর্ষের শিক্ষার্থীর ক্ষেত্রে স্নাতক (পাস)/ সমমান (ফাজিল) পর্যায়ের অভ্যন্তরীণ বা নির্বাচনী পরীক্ষায় নিয়মিত শিক্ষার্থী হিসাবে উত্তীর্ণ হতে হবে।

স্নাতক (পাস)/সমমান (ফাজিল) পর্যায়ের প্রথম বর্ষে ভর্তি হওয়ার পর বিরতিহীনভাবে ২য় বর্ষ ও ৩য় বর্ষে অধ্যয়ন করতে হবে এবং স্নাতক(পাস)/সমমান পর্যায়ের পরীক্ষায় অংশ্রগ্রহণ করতে হবে। উল্লেখ্য যে, ১ম, ২য়, ৩য় বর্ষের যেকোনো বর্ষে পুনঃভর্তি হলে উক্ত শিক্ষার্থী অনিয়মিত হিসাবে বিবেচিত হবে এবং উপবৃত্তিপ্রাপ্তির ক্ষেত্রে বিবেচিত হবে না।

নিয়মিত শিক্ষার্থী হিসেবে শ্রেণিকক্ষে (ক্লাস) কমপক্ষে ৭৫% উপস্থিতি থাকতে হবে। এক্ষেত্রে আবশ্যিক বিষয় হিসেবে (বাংলা/ইংরেজি) কাউন্ট করা যেতে পারে।
ছাত্র-ছাত্রীর ভর্তিকৃত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের হালনাগাদ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়/ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বীকৃতি এবং পাঠদানের অনুমতি থাকতে হবে।

শিক্ষার্থী নির্বাচন কমিটি:
সরকারি ও বেসরকারি উভয় প্রতিষ্ঠানেই উপবৃত্তি প্রাপ্তির জন্য শিক্ষার্থী নির্বাচনের ক্ষেত্রে ‘শিক্ষার্থী নির্বাচন কমিটি ’ গঠন করতে হবে।

ক. সরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী নির্বাচন কমিটি:
(১) অধ্যক্ষ, সংশ্লিষ্ট কলেজ- সভাপতি
(২) একজন শিক্ষক প্রতিনিধি- সদস্য
(৩) উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার- সদস্য
(৪) একজন অভিভাবক প্রতিনিধি (অধ্যক্ষ কর্তৃক মনোনীত

শিক্ষার্থী নির্বাচনের নিয়মাবলী:
(ক) প্রাথমিক নির্বাচন:
(১) প্রথমত, সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তিকৃত মোট শিক্ষার্থীর মধ্যে হতে উপরোক্ত শর্তাবলির আলোকে শিক্ষার্থীদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে মোট আবেদিত ছাত্র এবং ছাত্রীর পৃথক তালিকা প্রস্তুত করতে হবে।
(২) প্রাথমিকভাবে নির্বাচিত ছাত্রী তালিকাকে ১০০% ধরে তার মধ্যে হতে ৭৫% ছাত্রীকে উপবৃত্তির জন্য নির্বাচন করতে হবে।
(৩) একইভাবে, প্রাথমিকভাবে নির্বাচিত ছাত্র তালিকাকে ১০০% ধরে তার মধ্যে হতে ২৫% ছাত্রকে উপবৃত্তির জন্য নির্বাচন করতে হবে।

DailyResultBD এর শিক্ষা সংক্রান্ত সকল তথ্য পেতে আমদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন YouTube Channel

(খ) চূড়ান্ত নির্বাচন:
(১) শিক্ষার্থী নির্বাচনী কমিটি উপবৃত্তির জন্য শিক্ষার্থী নির্বাচন চূড়ান্ত করবে এবং নির্বাচিত শিক্ষার্থীদের নাম, শ্রেণি রোল নম্বর ও কলেজের নাম চূড়ান্ত করবেন।
(২) নির্বাচনি কমিটি উপবৃত্তিপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীর তালিকা চূড়ান্ত্ভাবে প্রস্ততকালে একটি রেজুলেশন করবেন। উক্ত রেজুলেশন এর
একটি কপিসহ উপবৃত্তির জন্য চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত শিক্ষার্থীদের চূড়ান্ত তালিকা প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষা সহায়তা ট্রাস্ট অফিসে প্রেরণ করবেন।
উল্লেখ্য যে, রেজুলেশন এর কপি ব্যতিত নির্বাচিত শিক্ষার্থীদের তালিকা গ্রহণযোগ্য হবে না।

Related Content