ভারতে কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস শুরু ১ নভেম্বর, শিক্ষাবর্ষ নয় মাস

ভারতে কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস শুরু ১ নভেম্বর, শিক্ষাবর্ষ নয় মাস ।করোনার মহামারির কারণে ভারতের কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষাবর্ষ হবে ৯ মাসের। আগামী ১ নভেম্বর ২০২০ থেকে দেশটির অনার্স এবং স্নাতকোত্তর স্তরের শিক্ষার্থীদের ক্লাস শুরু হবে। মঙ্গলবার কেন্দ্রীয় শিক্ষামন্ত্রী রমেশ পোখরিয়াল টুইট করে এসব বিষয়ে জানিয়েছেন।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, বর্তমান করোনাভাইরাস মহামারী পরিস্থিতিতে বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজ গুলোতে প্রথম বর্ষের ক্লাস শুরু হওয়া নিয়ে যে রিপোর্ট পেশ করা হয়েছিল সেই রিপোর্টকে সম্মতি দিল কেন্দ্রীয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়। ৩০ অক্টোবরের মধ্যেই ভর্তি প্রক্রিয়া শেষ করতে হবে। পরে আগামী ১ নভেম্বর থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর স্তরের প্রথম বর্ষের প্রথম সেমিস্টারের ক্লাস শুরু হবে।

ইউনিভার্সিটি গ্রান্টস কমিশন (ইউজিসি) প্রকাশিত ক্যালেন্ডারে দেখা গেছে, শিক্ষাবর্ষের ১ বছরের মেয়াদ কমে দাঁড়াচ্ছে প্রায় ১০ মাসে। ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষ শুরু হবে ১ নভেম্বর থেকে। ওইদিন থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তরের প্রথম বর্ষের ক্লাস শুরু হবে। এই সময় অনলাইন, অফলাইন অথবা দু’‌ভাবেই ক্লাস নেওয়া যাবে। এই শিক্ষাবর্ষ শেষ হয়ে ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষ শুরু হবে ৩০ আগস্ট থেকে। নভেম্বর থেকে যে শিক্ষাবর্ষ শুরু হতে চলেছে, তার সেমেস্টারের মেয়াদও প্রায় ২ ‌মাস কমে গেছে।

শিক্ষার সব খবর সবার আগে জানতে DailyResultBD এর ইউটিউব চ্যানেলের সাথেই থাকুন। আমদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন YouTube Channel নতুন বিকাশ অ্যাপ থেকে নিজের একাউন্ট খুলুন মিনিটেই, শুধুমাত্র জাতীয় পরিচয়পত্র দিয়ে। কোথাও যেতে হবে না! আর অ্যাপ থেকে একাউন্ট খুলে প্রথম লগ ইনে পাবেন ১০০ টাকা ইনস্ট্যান্ট বোনাস!সাথে আছে আরো অ্যাপ অফার: - প্রথম বার ২৫ টাকা রিচার্জে ৫০ টাকা ইনস্ট্যান্ট বোনাস .সর্বমোট ১৫০ টাকা বোনাস পাবেন একজন বিকাশ গ্রাহক। এছাড়া যারা একাউন্ট খুলেছেন তারাও বিকাশ এপ ডাউনলোড করে প্রথম প্রথম লগ ইনে পাবেন ১০০ টাকা ইনস্ট্যান্ট বোনাস! Bkash App Download Link

ইউজিসি জানিয়েছে, একটি সেমেস্টার যেখানে ৬ মাসের হয় নতুন শিক্ষাবর্ষে তা কমে হবে ৪ মাসের। স্নাতক ও স্নাতকোত্তরের প্রথম বর্ষে ভর্তিপ্রক্রিয়া অক্টোবরের মধ্যে শেষ করতে হবে। আসন ফাঁকা থাকলে তা পূরণের জন্য অবশ্য ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত ভর্তি নেওয়া যাবে। দুটি স্তরেই ১ নভেম্বর থেকে ক্লাস শুরু হবে।

ইউজিসির ক্যালেন্ডার নিয়ে পশ্চিমবঙ্গ কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি (‌‌ওয়েবকুটা)‌‌ সভাপতি শুভোদয় দাশগুপ্ত বলেন, ‘‌শিক্ষাবর্ষ বাঁচুক আমরা সকলেই চাই। কিন্তু পড়াশোনা যেন এমনভাবেই হয়, যাতে সমাজের প্রান্তিক স্তরে থাকা পড়ুয়াটি বঞ্চিত না হয়।’‌

Grameenphone এর মাইজিপি এপ ডাউনলোড করে জিতে নিন ফ্রি ইন্টারনেট এবং ফ্রি পয়েন্ট MyGP App Download Now DailyResultBD এর শিক্ষা সংক্রান্ত সকল তথ্য পেতে আমদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন YouTube Channel

কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতি ‘‌কুটা’‌র সভাপতি পার্থিব বসু বলেন, ‘‌দেশ জুড়ে উচ্চশিক্ষার পঠনপাঠনে সমতা রাখতেই এই ক্যালেন্ডার। তা সত্ত্বেও এর মধ্যে একটা সব কিছু কেন্দ্রীয়ভাবে নিয়ন্ত্রণের ঝোঁক রয়েছে। পরিস্থিতি অনুযায়ী রাজ্যগুলির হাতে কিছু সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা ছাড়লে ভাল হত।’‌

Related Content