ঈদের আগে মসজিদ-মাদ্রাসায় আর্থিক সাহয্যের ঘোষণা প্রধানমন্ত্রীর

ঈদের আগে মসজিদ-মাদ্রাসায় আর্থিক সাহয্যের ঘোষণা প্রধানমন্ত্রীর। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার (১৪ মে) বেলা ১১টার দিকে করোনাভাইরাসে কর্মহীন হয়ে পড়াদের মোবাইল ব্যাংকিং সেবার মাধ্যমে সরাসরি নগদ স্নাতক সমমান শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তির অর্থ প্রেরণ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি এ ঘোষনা দেন। এর আগে গণভবন থেকে সরাসরি ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এর উদ্বোধন করেন তিনি।

ঈদের আগে দেশের সব মসজিদে উপহার হিসেবে আর্থিক সহায়তা পাঠানো হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পাশাপাশি আরও সাত হাজার কওমি মাদরাসায় ঈদের আগে আর্থিক সহায়তা দেয়া হবে বলে জানান তিনি।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সারা বাংলাদেশে বিভিন্ন মসজিদে ইমাম-মোয়াজ্জেমসহ অন্যান্যরা আছেন। সাধারণত রমজান মাসে সবাই মসজিদে বেশি যায়। তারাবির নামাজ পড়েন, অনেকে দান করেন। এতে মসজিদের ভালো ইনকাম হয়। আমি খোঁজ নিচ্ছি, এখনও অনেক মসজিদ কমিটি ও বিত্তশালীরা দান করে যাচ্ছেন-এ খবর আমি জানি। তারপরও সরকারের একটা দায়িত্ব আছে। আমি ইতোমধ্যে একটি তালিকা করতে বলে দিয়েছি। সব মসজিদে রমজান-ঈদ উপলক্ষে আর্থিক সহায়তা দেব।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের লক্ষ্য দেশের প্রতিটি এলাকার সব জায়গায় কষ্ট দূর করা। আমি সেটাই চাই। আমাদের এত মানুষ আমরা হয়তো বেশি দিতে পারবো না। কিন্তু কিঞ্চিত পরিমাণ দিতে পারি। কেউ যেন বঞ্চিত না হয় সে চিন্তা করেই আমরা এ পদক্ষেপগুলো নিচ্ছি।’

বিকাশ অ্যাপ ইন্সটল করলেই ১০০ টাকা বোনাস! নতুন বিকাশ অ্যাপ থেকে নিজের একাউন্ট খুলুন মিনিটেই, শুধুমাত্র জাতীয় পরিচয়পত্র দিয়ে। কোথাও যেতে হবে না! আর অ্যাপ থেকে একাউন্ট খুলে প্রথম লগ ইনে পাবেন ১০০ টাকা ইনস্ট্যান্ট বোনাস! সাথে আছে আরো অ্যাপ অফার: - প্রথম বার ২৫ টাকা রিচার্জে ৫০ টাকা ইনস্ট্যান্ট বোনাস .সর্বমোট ১৫০ টাকা বোনাস পাবেন একজন বিকাশ গ্রাহক। এছাড়া যারা আগে একাউন্ট খুলেছেন তারাও বিকাশ এপ ডাউনলোড করে প্রথম প্রথম লগ ইনে পাবেন ১০০ টাকা ইনস্ট্যান্ট বোনাস! Bkash App Download Link

আরও সাত হাজার কওমি মাদরাসায় ঈদের আগে আর্থিক সহায়তা দেয়া হবে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের অনেক মাদরাসা আছে যেখানে এতিমখানা রয়েছে। যাদের কোথাও যাওয়ার জায়গা নেই। তারা খুব কষ্টের মধ্যে ছিল। তাদের কথা চিন্ত করে ইতোমধ্যে ছয় হাজার ৮৬৫টি কওমি মাদরাসায় আর্থিক সহায়তা দিয়েছি। যার আর্থিক পরিমাণ প্রায় ১০ কোটি টাকা। দ্বিতীয় পর্যায় আরও সাত হাজার কওমি মাদরাসায় ঈদের আগে আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হবে-এ পদক্ষেপ নিয়েছি।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, করোনার কারণে শিল্পকারখানার উৎপাদন ব্যাহত হয়েছে, আমদানি-রফতানি সীমিত হয়ে পড়েছে। তাই এক ইঞ্চি জমি অনাবাদি রাখা যাবে না। ফসল ফলাতে হবে।

শেখ হাসিনা বলেছেন, অন্যান্য দেশে করোনাভাইরাসে যেভাবে আক্রান্ত এবং মারা যাচ্ছে তার তুলনায় আমরা নিয়ন্ত্রণ করতে পেরেছি।

তিনি বলেন, যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশের দায়িত্বভার যখন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নিয়েছিলেন তখন কোনো সঞ্চয় ছিল না, ব্যাংকে কোনো জামানতও ছিল না। বঙ্গবন্ধু মানুষের ঘরে ঘরে ত্রাণ পৌঁছে দিয়েছিলেন। এমন কিছু ছিল না, যা রিলিফে দেয়া হয়নি।

শিক্ষা সংক্রান্ত সকল তথ্য পেতে আমদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন YouTube Channel

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার যখন ক্ষমতায় আসে বাংলাদেশে তখন মঙ্গা থাকে না, দরিদ্র থাকে না, এটা আমরা নিয়ন্ত্রণ করতে পেরেছি।

Related Content