জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে আবারো ফিরছে সেশনজট

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে আবারো ফিরছে সেশনজট। চলতি বছর কভিড-১৯-এর ছোবলে উচ্চশিক্ষা আবারও সেই সেশনজটের ফাঁদে পড়তে চলেছে, যা ক্রাশ প্রোগ্রামের মাধ্যমে দূর করা হয়েছিল।

সরকারের নির্দেশে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে অনলাইন ক্লাস শুরু করা হলেও প্রত্যন্ত এলাকায় থাকা অন্তত ৫৫ শতাংশ শিক্ষার্থীর কোনো ইন্টারনেট সুবিধা নেই। অনলাইনে ক্লাস করতে অনীহা রয়েছে ৭৭ শতাংশ শিক্ষার্থীর। পড়ালেখার বাইরে রয়েছেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৮ লাখ শিক্ষার্থীও। এ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত কোনো কোনো কলেজে নামমাত্র অনলাইন ক্লাস চললেও শিক্ষার্থীদের সম্পৃক্ততা তাতে খুবই কম। আরও পিছিয়ে পড়ছেন উন্মুক্ত ও আরবি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরা।

নভেম্বরেও উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো খোলা সম্ভব হবে না, ইংগিত দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা, দিপু মনি। এরই মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ে নতুন শিক্ষার্থী ভর্তির ইস্যুও সামনে চলে এসেছে। সম্প্রতি ইউজিসির অনলাইন সভায় উপাচার্যরা জানিয়েছেন, একাডেমিক পরীক্ষা শেষ করে পুরোনোদের বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বের হয়ে যাওয়ার সুযোগ দিতে হবে। নইলে নতুন শিক্ষার্থী ভর্তি হওয়ার ফলে সংকট আরও তীব্র হবে।

শিক্ষার সব খবর সবার আগে জানতে DailyResultBD এর ইউটিউব চ্যানেলের সাথেই থাকুন। আমদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন YouTube Channel নতুন বিকাশ অ্যাপ থেকে নিজের একাউন্ট খুলুন মিনিটেই, শুধুমাত্র জাতীয় পরিচয়পত্র দিয়ে। কোথাও যেতে হবে না! আর অ্যাপ থেকে একাউন্ট খুলে প্রথম লগ ইনে পাবেন ১০০ টাকা ইনস্ট্যান্ট বোনাস!সাথে আছে আরো অ্যাপ অফার: - প্রথম বার ২৫ টাকা রিচার্জে ৫০ টাকা ইনস্ট্যান্ট বোনাস .সর্বমোট ১৫০ টাকা বোনাস পাবেন একজন বিকাশ গ্রাহক। এছাড়া যারা একাউন্ট খুলেছেন তারাও বিকাশ এপ ডাউনলোড করে প্রথম প্রথম লগ ইনে পাবেন ১০০ টাকা ইনস্ট্যান্ট বোনাস! Bkash App Download Link

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে সৃষ্টি হয়েছে একাডেমিক সংকট। এখানে চতুর্থ বর্ষের চূড়ান্ত পরীক্ষা গত মার্চেই শেষ হওয়ার কথা ছিল। বেশিরভাগ পরীক্ষাও দিয়েছিলেন শিক্ষার্থীরা। দুই থেকে পাঁচটি বিষয়ের পরীক্ষা আটকে যায় করোনার কারণে। সেই থেকে হাত গুটিয়ে তারা। এ বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিগ্রি পাস কোর্স দ্বিতীয় ও তৃতীয় বর্ষ এবং মাস্টার্স ফাইনাল এপ্রিলের মধ্যে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। তবে করোনা সংক্রমণের কারণে এসব পরীক্ষাও স্থগিত হয়ে যায়। ডিগ্রি পাস কোর্সে প্রতিটি বর্ষে ৩৪টি পরীক্ষা হওয়ার কথা ছিল। গত আগস্ট পর্যন্ত মাস্টার্স প্রিলিমিনারি, অনার্স প্রথম বর্ষ পরীক্ষাও হওয়ার কথা ছিল। প্রতিটি বর্ষের ৩১টি বিষয়ে পরীক্ষা ছিল। করোনার কারণে এই পুরো পরীক্ষাসূচিই এলোমেলো হয়ে গেছে। চাকরির বয়স পেরিয়ে যাওয়ায় দুর্ভাবনায় পড়ছেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন অর রশিদ বলেন, ছাত্রদের উদ্দেশে বলব, তারা যেন বাড়িতে বসে পড়ালেখা করে। এ জন্য যে এই দুর্যোগ কাটিয়ে ওঠার পর আমরা একের পর এক পরীক্ষা নিতে থাকব। আগে যেমন ক্রাশ প্রোগ্রাম করে ওভারকাম করেছি, সেই রকম পদ্ধতি এখানেও প্রয়োগ করতে হবে।

Related Content
DailyResultBD এর শিক্ষা সংক্রান্ত সকল তথ্য পেতে আমদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন YouTube Channel