প্রাথমিক শিক্ষক বদলি কবে শুরু হবে? প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক বদলি

প্রাথমিক শিক্ষক বদলি কবে শুরু হবে? প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক বদলি। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকদের সমন্বিত অনলাইন বদলি নির্দেশিকা ২০২২ প্রেরণ ও অবহিতকরণ।

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকদের বদলির আবেদন অনলাইনে করা যাবে?
অনলাইন শিক্ষক বদলির লিঙ্কঃ http://myschool.eis.dpe.gov.bd ব্যবহার করে আবেদন করা যাবে। আপনার https://login.ipemis.dpe.gov.bd ওয়েবসাইটের ইউজার আইডি এবং পাসওয়ার্ড ব্যবহার করেই লগিন করতে পারবেন। প্রধান শিক্ষক বা কোন সহকারী শিক্ষক প্রধান শিক্ষক পদে পদোন্নতিপ্রাপ্ত হলে, উক্ত পদে তার চাকরির মেয়াদ ২ (দুই) বছর পূর্ণ হলে, পদ শূন্য থাকা সাপেক্ষে আন্তঃউপজেলা/থানা, আন্তঃজেলা এবং আন্তঃবিভাগীয় ভাবে বদলি করা যাবে।

প্রাইমারি শিক্ষক গন বদলির আবেদন করতে পারবেন http://myschool.eis.dpe.gov.bd/login এই লিংকে।

অনলাইনে প্রাথমিক শিক্ষক বদলির আবেদন ২০২২

দলির আবেদন প্রক্রিয়া শুরু হবে ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ তারিখ থেকে ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২ পর্যন্ত শিক্ষকরা বদলির আবেদন (http://myschool.eis.dpe.gov.bd) করতে পারবেন। এর এক সপ্তাহের মধ্যে ফলাফল প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হবে। প্রথম পেইজে প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়ে লগ ইন করতে হবে। অনলাইন আবেদন ফরম পূরণের ধাপ- ব্যবহারকারীর ধরন- এখনে আপনাকে পদবী যেমন : সহকারী শিক্ষক/প্রধান শিক্ষক/সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার/উপজেলা শিক্ষা অফিসার/জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার/বিভাগীয় উপপরিচালক/মহাপরিচালক করেতে হবে। শিক্ষক পিন নম্বর (ই-প্রাইমারি থেকে প্রাপ্ত অথবা মোবাইল নম্বর (ই-প্রাইমারি স্কুল সিস্টেমে ব্যবহৃত) তথ্যগুলো সঠিকভাবে দিয়ে “লগইন করুন” বাটনে ক্লিক করে পরবর্তী ধাপে প্রবেশ করতে হবে।

প্রাথমিক শিক্ষক বদলি কবে শুরু হবে? প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক বদলি

প্রাথমিক শিক্ষক বদলি কবে শুরু হবে? প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক বদলি

লগইন করুন বাটনে ক্লিক করলে পরবর্তী ধাপে ‘ই-প্রাইমারি স্কুল সিস্টেম’-এ নিবন্ধিত শিক্ষকের তথ্য (শিক্ষকের নাম, স্থায়ী ঠিকানা, পদবি, যোগদানের তারিখ, বর্তমানে কর্মরত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বদলিতে আগমনের তারিখ, কর্মরত প্রতিষ্ঠানের অনুমোদিত পদের সংখ্যা, ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা) দেখাবে। তথ্যগুলো সঠিক হলে পরবর্তী ধাপে যাওয়ার বাটনে ক্লিক করতে হবে (তথ্যের ভুল থাকলে ই-প্রাইমারি সিস্টেম হতে হালনাগাদ করে নিতে হবে)। এর পরের ধাপ/পেজ-এ বদলির ধরন নির্ধারন করতে হবে। বদলিরর ধরণ : একই উপজেলা/থানা অথবা আন্তঃ উপজেলা/থানায় বদলির আবেদন অথবা আন্তঃ জেলা বদলির আবেদন অথবা আন্তঃ বিভাগ বদলির আবেদন অথবা সিটি কর্পোরেশন বদলির আবেদন। বদলির ধরন মূলত কোথা হতপ কোথায় বদলিতে গমন করতে চান তা বোঝানো হয়েছে। এক্ষেত্রে একজন একই থানা/উপজেলা, আন্তঃথানা/উপজেলা, আন্তঃজেলা, আন্তঃবিভাগ ও সিটি কর্পোরেশন-এর এক স্কুল হতে অন্য স্কুলে বদলির আবেদন করতে পারবেন। সর্বশেষ, বদলির ধরন নির্বাচন করতঃ আবেদন সাবমিট করলে আপনার প্রোফাইলে বদলির আবেদনটি দেখা যাবে।

দীর্ঘ দুই বছর পর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা বদলির সুযোগ পাচ্ছেন। তাদের বদলির পাইলটিং কার্যক্রম আগামীকাল বুধবার থেকে শুরু হচ্ছে। গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলায় শিক্ষকদের অনলাইন বদলির পাইলটিং করা হবে। অনলাইনে বদলির পাইলটিং সফল হলে সারাদেশে শিক্ষকদের অনলাইনে বদলি কার্যক্রম শুরু হবে। আগামীকাল বুধবার এ পাইলটিং কার্যক্রমের উদ্বোধন করবেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেন।

ফেব্রুয়ারিতে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক বদলির পাইলটিং কার্যক্রম।দুই বছরের বেশি সময় পর চলতি ফেব্রুয়ারিতে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক বদলির পাইলটিং কার্যক্রম উদ্বোধন করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলায় বদলি কার্যক্রমের পাইলটিং শুরু হবে। তারপর পর্যায়ক্রমে সারাদেশের সব শিক্ষকদের বদলি কার্যক্রম চলবে। তবে ক্ষেত্রমতে স্বামী/স্ত্রীর কর্মস্থলের বা স্থায়ী ঠিকানার প্রমাণপত্র, বদলির কারণ কিংবা প্রেক্ষাপটের আলোকে প্রয়োজনীয় প্রমাণপত্র সংযুক্ত করতে হতে পারে।

বিদ্যমান বদলির নীতিমালার শর্তাবলীর আলোকে এমনভাবে সফটওয়্যারে সবকিছু সেট করা হয়েছে যেন অযাচিত কিংবা বদলির শর্ত পূরণ করে না এমন কেউ আবেদন করতে পারবে না। শূন্যপদের সকল তথ্য ডাটাবেজে থাকায় শিক্ষকরা আবেদনের সময়ই বিদ্যমান সকল শূন্যপদ দেখতে পাবেন এবং এক বা একাধিক বিদ্যালয় বাছাই করে আবেদন করতে পারবেন। প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক আলমগীর মুহম্মদ মনসুরুল আলম  বলেন, ফেব্রুয়ারিতে শিক্ষক বদলি কার্যক্রম উদ্বোধন করার পরিকল্পনা নিয়েছে মন্ত্রণালয়। পাইলটিং শেষ করেই পর্যায়ক্রমে সকল শিক্ষকদের বদলি কার্যক্রম চলবে।

অনলাইন সফটওয়্যার প্রস্তুত আছে। উদ্বোধন হলেই দ্রুত সব ব্যবস্থা নেওয়া হবে। শিক্ষক বদলির বিদ্যমান পদ্ধতির ধাপগুলো বিশ্লেষণ করে সেবা দিতে বাস্তব সমস্যা, প্রতিবন্ধকতা, ধীরগতি এবং পদ্ধতিগত শূন্যতা নির্ণয় করা করা হয়। শিক্ষকরা তাদের শিক্ষক পিন (ই-প্রাইমারি সিস্টেম) ব্যবহার করে ওটিপি অথেনটিকেশনের মাধ্যমে লগইন করে নিজস্ব ইউআই (ইউজার ইন্টারফেস)-এ প্রবেশ করে আবেদন করতে পারবেন।শিক্ষক এবং বিদ্যালয়ের তথ্যাদি আগে থেকেই ডাটাবেজে সংরক্ষণ থাকায় শুধু বদলির ক্ষেত্র অন্তঃউপজেলা, আন্তঃউপজেলা, আন্তঃজেলা, আন্তঃবিভাগ এবং অন্তঃসিটি করপোরেশন এবং বদলির কারণ সিলেক্ট করে বদলির আবেদন করা যাবে।

মাসিক রিটার্ন, চাকরি বইয়ের ফটোকপি ইত্যাদি সংযুক্তির প্রয়োজন হবে না।গত বছর মার্চ মাসে অনলাইনে শিক্ষক বদলির প্রশিক্ষণ শেষ করে গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলায় পাইলটিং শুরু হওয়ার কথা ছিল। পর্যায়ক্রমে শিক্ষক প্রশিক্ষণ দিয়ে সারাদেশে অনলাইনে শিক্ষক বদলি কার্যক্রম পরিচালনার প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছিল। তবে মন্ত্রণালয় জানায় করোনা পরিস্থিতিসহ বিভিন্ন কারণে পাইলটিং কার্যক্রমই শুরু করা সম্ভব হয়নি। অনলাইনে বদলি কার্যক্রম পরিচালনার উদ্যোগ নেওয়ার পর দুই বছরের বেশি সময় প্রাথমিকের শিক্ষক বদলি বন্ধ রয়েছে। কথা ছিল করোনাভাইরাসের কারণে সরকার আরোপিত বিধিনিষেধ ওঠে গেলে সরকারি প্রাথমিক শিক্ষকদের অনলাইন বদলি শুরু হবে। কিন্তু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দিলেও পাইলটিং উদ্বোধন না হওয়ায় পুরো কার্যক্রম বন্ধ।

Piloting programme of primary school teacher transfer in February. After more than two years, it is planned to inaugurate the piloting programme of transfer of government primary school teachers in February this year. Piloting of the transfer programme will begin in Kaliakair Upazila of Gazipur. After that, the transfer of all the teachers across the country will take place. However, in this case, the husband/wife may have to attach the required proof of work or permanent address, the reason for the transferor in the light of the background.

শিক্ষার সব খবর সবার আগে জানতে DailyResultBD.com ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন YouTube Channel জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল নোটিশ দেখুন এখানে একসাথে National University Notice Board আমাদের ফেসবুক গ্রুপে জয়েন করুন Facebook Group