ঢাকা রেসিডেনসিয়াল মডেল কলেজ ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০১৯

ঢাকা রেসিডেনসিয়াল মডেল কলেজ বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার মোহাম্মদপুরে অবস্থিত একটি স্কুল ও কলেজ। এটি একটি সরকারি স্বায়ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠান। এই কলেজে বিজ্ঞান, মানবিক ও বাণিজ্য তিন বিভাগেই শিক্ষা কার্যক্রম চালু রয়েছে। ঢাকা রেসিডেনসিয়াল মডেল কলেজ বাংলাদেশের অন্যতম খ্যাতনামা কলেজ। এই প্রতিষ্ঠানে তৃতীয় হতে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত পাঠদান করানো হয়

ঢাকা রেসিডেনসিয়াল মডেল কলেজে 2019 শিক্ষাবর্ষে নবম শ্রেণিতে বিজ্ঞান, ব্যবসায় শিক্ষা ও মানবিক বিভাগে সরকারি নীতিমালা অনুযায়ী এসএমএস ও অন-লাইনের মাধ্যমে প্রভাতী শাখায় আবাসিক (আসন খালি থাকা সাপেক্ষে) ও অনাবাসিক হিসেবে এবং দিবা শাখায় অনাবাসিক ও আবাসিক (সীমিত সংখ্যক আসনে মেধার ভিত্তিতে) হিসেবে ছাত্র ভর্তি করা হবে। েজ.এস.সি বা সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ নিম্নবর্ণিত জি.পি.এ প্রাপ্ত ছাত্ররা অন-লাইনে ও SMS এর মাধ্যমে শুধুমাত্র বিকাশ প্রি-পেইড মোবাইল থেকে ভর্তির জন্য আবেদন করতে পারবে। অ

অত্র প্রতিষ্ঠানের ছাত্রদের আবেদনের জন্য ন্যূনতম জি.পি.এ ৫ঃ০০ ও ৪ঃ৫০

বিকাশ একাউন্টে ফ্রি ১৫০ টাকা বোনাস নিয়ে নিন !!নতুন বিকাশ অ্যাপ থেকে নিজের একাউন্ট খুলুন মিনিটেই, শুধুমাত্র জাতীয় পরিচয়পত্র দিয়ে। কোথাও যেতে হবে না! আর অ্যাপ থেকে একাউন্ট খুলে প্রথম লগ ইনে পাবেন ১০০ টাকা ইনস্ট্যান্ট বোনাস! - প্রথম বার ২৫ টাকা রিচার্জে ৫০ টাকা ইনস্ট্যান্ট বোনাস Bkash App Download Link

বহিরাগত ছাত্রদের আবেদনের জন্য ন্যূনতম জি.পি.এ ৪ঃ৫০

কোটার আওতায় আবেদনের জন্য ন্যূনতম জি.পি.এ ৪ঃ৫০

২। ভর্তির আবেদন গ্রহণ : ৫ জানুয়ারি থেকে ১৫ জানুয়ারি ২০১৯ পর্যন্ত।

৩। ভর্তির জন্য মনোনীত শিক্ষার্থীদের তালিকা প্রকাশ : জানুয়ারি ২০১৯।
আবেদন ফিস ২০০ টাকা মাত্র।

ঢাকা রেসিডেনসিয়াল মডেল কলেজ ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০১৯ঢাকা রেসিডেনসিয়াল মডেল কলেজ ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০১৯

ঢাকা রেসিডেনসিয়াল মডেল কলেজ ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০১৯

৪। একজন ভর্তিচ্ছু ছাত্র প্রয়োজনবোধে প্রভাতী ও দিবা উভয় শাখায় আলাদাভাবে আবেদন করতে পারবে।

৫। অত্র কলেজে ভর্তি হতে আগ্রহী শিক্ষার্থীদের অনলাইন আবেদন ফরমে পছন্দক্রম (Priority) তালিকায় ঢাকা রেসিডেনসিয়াল মডেল কলেজকে ১ নম্বরে রাখতে হবে।

6। অত্র কলেজের শিক্ষার্থীদের নিজ নিজ (প্রভাতী ও দিবা) শাখায় আবেদন করতে হবে।

7। অত্র কলেজের ওয়েব সাইটে www.drmc.edu.bd ভর্তি সংক্রান্ত সকল তথ্য, নিয়মাবলি ও ফলাফল জানা যাবে।

ঢাকা রেসিডেন্সিয়াল মডেল কলেজে তৃতীয় ও ষষ্ঠ এবং নবম শ্রেণিতে ২০১৯ শিক্ষাবর্ষে ছাত্র ভর্তির বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, তৃতীয় শ্রেণিতে বাংলা ও ইংরেজি ভার্সনে এবং প্রভাতি শাখায় আবাসিক; দিবা শাখায় অনাবাসিক হিসেবে ছাত্র ভর্তি করা হবে।

ভর্তির জন্য আবেদন করতে হবে অনলাইনে। লিখিত পরীক্ষার মাধ্যমে আবেদনকৃত শিক্ষার্থীদের মধ্য থেকে ভর্তির জন্য যোগ্যদের নির্বাচিত করা হবে।
লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে (প্রভাতী) ও (দিবা)।

ভর্তির আবেদন সংক্রান্ত নির্দেশিকা পাওয়া যাবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির ওয়েবসাইটে : www.drmc.edu.bd
চিকিৎসা ব্যবস্থা
ছাত্রদের চিকিৎসার জন্য কলেজ প্রাঙ্গনে ২০ শয্যা বিশিষ্ট একটি হাসপাতাল স্থাপন করা হয়েছে। দুইজন অভিজ্ঞ এম.বি.বি.এস (শিশু বিশেষজ্ঞ) ডাক্তার এবং অভিজ্ঞ ফার্মাসিস্ট ছাত্রদের চিকিৎসা প্রদানের জন্য সর্বদা নিয়োজিত আছেন। সাধারণ রোগের চিকিৎসা, প্রয়োজনীয় টিকা দান ব্যবস্থা ইত্যাদি এখানেই সম্পন্ন করা হয়।

গ্রন্থাগার
কলেজে একটি সমৃদ্ধ গ্রন্থাগার আছে। গ্রন্থাগারে দৈনিক, সাপ্তাহিক, পাক্ষিক এবং মাসিক পত্র-পত্রিকা ছাড়াও প্রায় বিশ হাজার বই আছে। গ্রন্থাগারকে ক্রমাগত সমৃদ্ধ করা হচ্ছে এবং তা ধীরে ধীরে একটি মানসম্মত গ্রন্থাগারে পরিণত হচ্ছে।

সহ পাঠ্যক্রম ব্যবস্থা
এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদেরকে দৈহিক ও মানসিক সুসমন্‌বিত উৎকর্ষ সাধনের লক্ষ্যে সহ-পাঠ্যক্রম কর্মসূচির ব্যবস্থা করা হয়। এখানে আবাসিক ছাত্রদের জন্য প্রাতঃকালীন শরীর-চর্চা ও বৈকালিক খেলাধুলা বাধ্যতামূলক। ফুটবল, ক্রিকেট, হকি, ভলিবল, বাস্কেটবল নিয়মিত খেলা হয়। এছাড়া আন্তঃকক্ষ খেলাধুলা ও প্রতিযোগিতার ব্যবস্থা রয়েছে। ছাত্রদের মধ্যে সাংস্কৃতিক চেতনা উজ্জীবিত করার লক্ষ্যে বার্ষিক সাংস্কৃতিক সপ্তাহের আয়োজন করা হয়। এতে হামদ-নাত, ক্‌বিরাত, বক্তৃতা, বিতর্ক, আবৃতি, অভিনয়, কৌতুক, ছড়াগান, গল্প বলা, নাট্যানুষ্ঠান, সংগীতানুষ্ঠান, চিত্রাংকন ইত্যাদি প্রতিযোগিতার ব্যবস্থা করা হয়। ডাক টিকেট সংগ্রহ, চিত্রাংকন, ছবি তোলা, বাগান করা, মাটির কাজ, সঙ্গীত চর্চা, স্কাউটিং, নাট্যচর্চা, বিজ্ঞান ক্লাব, ব্যাণ্ড শিক্ষা, জুনিয়্র ক্যাডেট কোর প্রভৃ কার্যক্রমও এর আওতাভুক্ত। এই কলেজের শিক্ষার্থীরা জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বিভিন্ন শিক্ষা সহায়ক কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করে থাকে
প্রয়োজনীয় নির্দেশাবলি :

আবাসিক ছাত্রদের পোশাকে সংক্ষিপ্ত নাম ও কলেজ নম্বর অংকিত থাকতে হবে। এরূপ চিহ্নহীন পোশাক হারালে কলেজ কর্তৃপক্ষ দায়ী হবে না। অভিভাবকগণ তাঁদের পুত্র/ প্রতিপাল্যের পোশাকের তিন কপি তালিকা প্রস্তুত করবেন। অভিভাবকগণ এক কপি নিজের নিকট রাখবেন এবং দুই কপি কলেজ কর্তৃপক্ষের নিকট জমা দিবেন। নির্ধারিত পোশাকের চেয়ে কম পোশাক নিয়ে এলে ছাত্রকে হাউসে গ্রহণ করা হবে না। পোশাকের স্বল্পতা হেতু কোনো ছাত্রকে যদি গৃহে ফেরত পাঠানো হয় তার দায়-দায়িত্ব অভিভাবককেই গ্রহণ করতে হবে। নির্ধারিত তালিকার বাইরে কোনো পোশাক ছাত্রদেরকে দেয়া যাবে না।

শিক্ষা কার্যক্রম ও পাঠ্যক্রম
এ কলেজে ৩য় থেকে ১২শ শ্রেণী পর্যন্ত ছাত্রদের পাঠদান করা হয়। মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শ্রেণীতে বিজ্ঞান, মানবিক ও বাণিজ্য শাখায় শিক্ষার্জনের সুযোগ রয়েছে।

পাঠদান পদ্ধতি
এ কলেজে ছাত্র-শিক্ষক সম্পর্ক অত্যন্ত নিবিড় থাকায় ছাত্রদেরকে হাতে-কলমে যত্নসহকারে পাঠদান করা হয়। পর্বশেষ পরীক্ষা ছাড়াও প্রতি পর্বে দু’টি করে শ্রেণী-পরীক্ষা গ্রহণ করা হয়। প্রাইমারি ও জুনিয়র বৃত্তি পরীক্ষা এবং মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার জন্য ছাত্রদেরকে সুপরিকল্পিতভাবে প্রস্তুতি গ্রহণে সহায়তা করা হয়। অধ্যক্ষ ও উপাধ্যক্ষ বৃন্দ শ্রেণী শিক্ষকের মাধ্যমে ছাত্রদের পাঠন্নতি নিয়মিতভাবে মনিটরিং করেন।

Related Content